শাহ আবদুল আজিজ মুহাদ্দিস দেহলভী রহমতুল্লাহি আলাইহি ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করতেন।

শাহ আবদুল আজিজ মুহাদ্দিস দেহলভী রহমতুল্লাহি আলাইহির ঈদে মিলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন।

নির্ভরযোগ্য আলেম মাওলানা হাফিজ মুহাম্মদ আব্দুল হক এলাহাবাদী মুহাজিরে মক্কী রহমতুল্লাহি আলাইহি তাঁর স্বরচিত বিখ্যাত কিতাব “আদ-দুরুল মুনাজ্জাম ফি হুকুমে আমলে মাওলাদিন নাবীয়্যিল আযম” গ্রন্থে শায়েখ আব্দুল আযীয দেহলবী রহমতুল্লাহি আলাইহি (১১৫৭-১২৩৯ হিজরি) এর সঠিক মন্তব্যই তুলে ধরেছেন এভাবে, “শায়েখ আব্দুল আযীয দেহলবী রহমতুল্লাহি আলাইহি মুহররাম মাসের অনুষ্ঠান মরসিয়াখানি (শোক গাথা পাঠ) সম্পর্কে জনৈক ব্যক্তির জিজ্ঞাসার উত্তরে বললেন, সারা বছরের মধ্যে এ ফকীরের (আমার) বাড়িতে দুটি মজলিস অনুষ্ঠিত হয়। একটি হচ্ছে মিলাদ শরীফের আলোচনা অনুষ্ঠান, আর অপরটি হচ্ছে শাহাদাতে হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার আলোচনা মুবারক।

প্রথম মজলিসে আশুরার দিন চারশত বা পাঁচশত এবং প্রায় এক হাজার লোকের সমাগম হয়। সে মজলিসে দুরূদ শরীফ পাঠ করা হয়। আমিও সে মজলিসে উপস্থিত হয়ে বসি। আর হযরত হাসনাইন আলাইহিমাস সালাম সম্পর্কে হাদীসে যেসব ফযিলত বর্ণিত হয়েছে মজলিসে তাও বর্ণনা করা হয়। আর হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম এবং উনার সাথীদের শাহাদাত লাভের ফযীলত সম্পর্কেও কিছু কিছু হাদীস বর্ণনা করা হয়।

আর উনাদের শহীদকারীদের  খারাপ পরিণত সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়। এ উপলক্ষে জীন-পরী থেকে হযরত উম্মুল মু’মিনীন ইম্মে সালমা আলাইহাস সালাস ও অন্যান্য সাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ  যে শোক গাঁথা শুনেছেন তারও কিছু কিছু আবৃতি করা হয়। হযরত ইবন আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু সহ অন্যান্য সাহাবীগণ যে বিস্ময়কর অদ্ভুত স্বপ্ন দেখেছেন তাও আলোচনা করা হয়।

আর হযরত নবী করীম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে, এ হৃদয় বিদারক ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন তাও আলোচনা করা হয়। এরপর কুর’আন মাজিদ খতম করা হয় এবং পাঁচটি আয়াত শরীফ পাঠ করে উপস্থিত লোকদের রূহের মাগফিরাতের জন্য দু’আ করা হয়। এর মাঝে কোনো ব্যক্তি সুললিত কন্ঠে সালাম পাঠ করলে অথবা (মরসিয়াহ) শোক গাঁথা পাঠ করলে উপস্থিত লোকদের ও ফকীরদের মনটি কোমল হয়ে মহব্বতের আলোকে আবেগে নয়ন যুগল অশ্রুসিক্ত হয়ে উঠে। এবং কান্নায় অস্থির হয়ে যায়। এ ধরণের আরও অনেক পূণ্যময় কাজ করা হয়। অতএব এ কাজগুলো যদি বানোয়াট ও শরীয়ত বিরোধী কাজ হত তাহলে এ ফকীরের তা বৈধ হত না। এবং আদৌ তা সমর্থন করতাম না।এখন আসুন মিলাদ শরীফের অনুষ্ঠানের আলোচনায়। রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখ লোকজন পূর্ব আভাস মাফিক আমার বাড়িতে এসে জমা হয় এবং দুরূদ শরীফ পাঠে তারা মশগুল হয়। আর এ ফকীরও দুরূদ শারীফ পাঠে তাদের সাথে শামিল হয়। প্রথমত হযরত নবী কারীম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ফযিলত সম্পর্কে বর্ণিত হাদীসসমূহের কিছু কিছু বর্ণনা করা হয়। এরপর হযরত নবী কারীম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জন্মবৃত্তান্ত ঘটনাবলী। উনার মুবারক দেহের অবয়বের গঠন আকৃতি, দুগ্ধপান কালীন কিছু অবস্থা ও ঘটনাবলীসহ কিছু কিছু হাদীস শরীফ ও বর্ণনা করা হয়। এরপর উপস্থিত লোকদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী এবং ফাতিহার নিয়তে শিরনী ও মিষ্টান্ন বিতরণ করা হয়। এ ছাড়া পুরনো দস্তর অনুযায়ী সব শেষে হযরত নবী কারীম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার চুল মুবারক সকলকে দেখানো হয়।”
[সূত্রঃ আদ-দুরুল মুনাজ্জাম ফি হুকুমে আমলে মাওলাদিন নাবীয়্যিল আযম, পৃঃ ২০৯-২১১]