মুসলমান ও সন্ত্রাসীর মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে পবিত্র ‘সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ’ তথা হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াছাল্লাম উনার সুমহান বেলাদত শরীফ উপলক্ষে উনার সুমহান সম্মানার্থে উনার শান মুবারক এ খুশি মুবারক প্রকাশ করা।

বর্তমানে কাফির-মুশরিকদের এজেন্ট মুসলমান নামধারী সন্ত্রাসীদের ব্যাপারে  গোয়েন্দাবাহিনী-প্রতিরক্ষা বাহিনী খুব চিন্তার মধ্যে আছে। কিন্তু খুব সহজে হিসেব করলে একজন মুসলমান ও সন্ত্রাসীর মধ্যে তফাৎ হচ্ছে পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ তথা ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন। সুবহানাল্লাহ।

বর্তমানে সারা বিশ্বে যারা সন্ত্রাসীপনা করে সম্রাজ্যবাদীদের আক্রমণের মওকা তৈরী করছে তারা প্রায় সবাই ওহাবী-সালাফি আকিদ্বাভূক্ত । আর এই আকিদ্বাভূক্ত দলগুলো কিন্তু পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ তথা ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করে না। কথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস, আল কায়েদা, জেএমবি, আল শাবাব, তালেবান, বোকো হারাম, তাকফিরি, আনসারুল্লাহ বাংলাটিম, আল নুসরা ফ্রন্ট (সিরিয়ান আল কায়েদা), হিযবুত তাহরীর এই প্রত্যেকটি সন্ত্রাসী । এই সকল নামধারী ইসলামী দলগুলো পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ তো পালন করে না, বরং পালন করলে তাদেরকে হত্যা করার হুমকি দেয় । তাই পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ তথা  ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হচ্ছে এমন বিষয় যা পালনের দ্বারাই নির্ধারিত হয় কে মুসলমান আর কে সন্ত্রাসী।