সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা তথা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার জন্য ‘ফালইয়াফরাহু’ তথা খুশি মুবারক প্রকাশ করা কেন এবং কিভাবে সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত?

সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা তথা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার জন্য ‘ফালইয়াফরাহু’ তথা খুশি মুবারক প্রকাশ করা কেন এবং কিভাবে সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত

যেমন মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

وَمَا خَلَقْتُ الْـجِنَّ وَالْاِنْسَ اِلَّا لِيَعْبُدُوْنِ

অর্থ : “আমি জিন ও ইনসানকে একমাত্র আমার ইবাদত করার জন্য সৃষ্টি করেছি।” (পবিত্র সূরা যারিয়াত শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ- ৫৬)

এখন ইবাদত বা আমলের মধ্যে কোন ইবাদত বা আমল সর্বশ্রেষ্ঠ তা মহান আল্লাহ পাক তিনিই ভালো জানেন। এবং তা প্রকাশ করার লক্ষ্যে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন-

يَا اَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُمْ مَّوْعِظَةٌ مّن رَّبّكُمْ وَشِفَاءٌ لّمَا فِي الصُّدُوْرِ وَهُدًى وَرَحْـمَةٌ لّلْمُؤْمِنِيْنَ ◌ قُلْ بِفَضْلِ اللهِ وَبِرَحْـمَتِهه فَبِذٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوْا هُوَ خَيْرٌ مّـمَّا يَـجْمَعُوْنَ

অর্থ : “হে মানবজাতি! অবশ্যই মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে তোমাদের মধ্যে তাশরীফ মুবারক এনেছেন মহান নছীহত মুবারক দানকারী, তোমাদের অন্তরের সকল ব্যাধিসমূহ শিফা মুবারক দানকারী, কুল-কায়িনাতের মহান হিদায়েত মুবারক দানকারী ও খাছভাবে ঈমানদারদের জন্য, আমভাবে সমস্ত কায়িনাতের জন্য মহান রহমত মুবারক দানকারী (নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)। হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মাহকে বলে দিন, মহান আল্লাহ পাক তিনি সম্মানিত ফদ্বল বা অনুগ্রহ মুবারক ও সম্মানিত রহমত মুবারক হিসেবে উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে হাদিয়া মুবারক করেছেন; সেজন্য তারা যেনো সম্মানিত ঈদ উদযাপন তথা খুশি মুবারক প্রকাশ করে। এই খুশি মুবারক প্রকাশ বা ঈদ করাটা সেসব কিছু থেকে উত্তম, যা তারা দুনিয়া-আখিরাতের জন্য সঞ্চয় করে।” (পবিত্র সূরা ইঊনুস শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৭-৫৮)

অর্থাৎ فَلْيَفْرَحُوْا ‘ফালইয়াফরাহু’ বা খুশি প্রকাশ করা হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত বা আমল। আর এই فَلْيَفْرَحُوْا ‘ফালইয়াফরাহু’ বা খুশি প্রকাশ করার বিষয়ে মহান আল্লাহ পাক তিনি বলেছেন,
هُوَ خَيْرٌ مِّمَّا يَجْمَعُونَ
অর্থাৎ “এই খুশি প্রকাশ করাটা হবে বান্দা-বান্দির জন্য সব কিছু থেকে উত্তম, যা তারা দুনিয়া ও আখিরাতের জন্য জমা করে রাখে।”

উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা প্রমাণিত হল হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সল্লাম উনার জন্য “ফালইয়াফরাহু” তথা খুশী মুবারক প্রকাশ করা সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত।

এছাড়াও সহীহ হাদীস শরীফ দ্বারা প্রমাণিত যে “হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সৃষ্টি মুবারক না করলে মহান আল্লাহ পাক তিনি কিছুই সৃষ্টি মুবারক করতেন না”। (দালায়েলুন নাবায়িয়্যাহ, মুসতাদরাক আল হাকেম, আল মাদখাল, আল মাওয়াহেবুল লাদুনিয়্যাহ, শেফাউস সিকাম)
উনার অস্থিত্ব মুবারক উনার উছিলাতেই সমস্ত কিছু অস্থিত্ব মুবারক লাভ করেছে। আমরা অন্যান্য ইবাদত যেমন নামাজ, রোযা, হজ্জ, যাকাত সর্বোপরি সর্বশ্রেষ্ট এবং সর্বোত্তম আদর্শ মুবারক উনার মাধ্যম দিয়েই লাভ করেছি। শুধু আমরা না হযরত আদম আলাইহিস সালাম উনার থেকে শুরু করে সমস্ত হযরত নবী রসূল আলাইহিমুস সালাম এমনকি সৃষ্টির শুরু থেকে এই পর্যন্ত জিনারা যা কিছু লাভ করেছেন সমস্ত কিছুই উনার মাধ্যম দিয়েই লাভ করেছেন । এই বিষয়ে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন,
اِنَّـمَا اَنَا قَاسِمٌ وَاللهِ يُعْطِىْ
অর্থ: “নিশ্চয়ই আমি হচ্ছি বণ্টনকারী। আর যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি হচ্ছেন দাতা।” সুবহানাল্লাহ! (বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ)

সুতরাং মহান আল্লাহ পাক উনার ফজল এবং রহমত মুবারক হিসেবে হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে যদি আমরা লাভ না করতাম তাহলে কোন নিয়ামতই আমরা লাভ করতে পারতাম না। সুতরাং উনার জন্য খুশি মুবারক প্রকাশ করাই হচ্ছে সমস্ত কিছু থেকে শ্রেষ্ট। এমন শ্রেষ্ট যে কুফরী শিরিকী ও এই আমল বিনষ্ট করতে পারে না।

হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার জন্য ‘ফালইয়াফরাহু’ তথা খুশি মুবারক প্রকাশ করাই যে সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত এবং কুফরী ‍শিরিকী করলে দ্বারাও যে এই আমল বিনষ্ট হয় না তা কাট্টা কাফির আবু লাহাব কে দিয়েই মহান আল্লাহ পাক তিনি প্রকাশ করে দিয়েছেন। সে বিষয়টা হচ্ছে আবু লাহাব কাট্টা কাফির চিরজাহান্নমী হওয়ার পরেও, নবীজী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার আগমনের দিনে খুশি প্রকাশ করাই প্রতি সোমবার দিনে তাকে পানি পান করানো হয়। এই বিষয়ে পবিত্র বুখারী শরীফ উনার মধ্যে উল্লেখ রয়েছে,

قال حضرت عروة رضي الله عنه وثويبة مولاة لابي لهب كان ابو لهب اعتقها فارضعت النبي صلي الله عليه و سلم فلما مات ابو لهب اريه بعض اهله بشر حيبة قال له ماذا لقيت قال ابو لهب لم الق بعد كم غير اني سقيت في هذه بعتاقتي ثويبة

অর্থ : হযরত উরওয়া রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তিনি বর্ননা করেন, হযরত সুয়াইবিয়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা তিনি ছিলেন আবু লাহাবের বাঁদী এবং আবু লাহাব হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত(আগমন) শরীফে খুশি হয়ে উনার খিদমত করার জন্য ওই বাঁদীকে আযাদ করে দিয়েছিলো ! এরপর আখেরী রসূল, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে তিনি দুধ পান করান । অতঃপর আবু লাহাব যখন মারা গেলো (কিছুদিন পর) তার পরিবারের একজন অর্থাৎ তার ভাই হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি স্বপ্নে দেখলেন যে, আবু লাহাব সে ভিষন কষ্টের মধ্যে নিপতিত আছে! তিনি তাকে জিজ্ঞাসা করলেন, তোমার সাথে কিরূপ ব্যবহার করা হয়েছে ? আবু লাহাব উত্তরে বললো, যখন থেকে আপনাদের থেকে দূরে রয়েছি তখন থেকেই ভীষন কষ্টে আছি !
তবে হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত(আগমন) শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করে বাঁদী সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা উনাকে দু’আঙ্গুলের ইশারায় আযাদ/মুক্তি দেয়ার কারনে সেই দু’আঙ্গুল হতে সুমিষ্ট ঠান্ডা ও সুশীতল পানি পান করতে পারছি !””
( সহীহ বুখারী শরীফ – কিতাবুন নিকাহ- ২য় খন্ড ৭৬৪ পৃষ্ঠা )

বিখ্যাত মুহাদ্দিস, বুখারী শরীফের বিখ্যাত ব্যাখ্যাকার, হাফিজে হাদীস, হযরত ইবনে হাজার আসকালানী রহমাতুল্লাহি আলাইহি এবং বিখ্যাত মুহাদ্দিস, হাফিজে হাদীস, হযরত বদরুদ্দীন আইনী রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনারা উনাদের বুখারী শরীফের শরাহতে উল্লেখ করেছেন-

وذكر السهيلي ان العباس قال لما مات ابو لهب رايته في منامي بعد حول في شر حال فقال ما لقيت بعد كم راحة الا ان العذاب يخفف عني في كل يوم اثنين وذلك ان النبي صلي الله عليه و سلم ولد يوم الاثنين وكانت ثويبة بشرت ابا لهب بمولده فاعتقها

অর্থ: হযরত ইমাম সুহাইলী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি উল্লেখ করেন যে, হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তিনি বলেন, আবু লাহাবের মৃত্যুর এক বছর পর তাকে স্বপ্নে দেখি যে, সে অত্যন্ত দুরবস্থায় রয়েছে ! সে বললো, ( হে ভাই হযরত আব্বস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) আপনাদের কাছ থেকে বিদায় নেয়ার পর আমি কোন শান্তির মুখ দেখি নাই।
তবে হ্যাঁ, প্রতি সোমবার শরীফ যখন আগমন করে তখন আমার থেকে সমস্ত আযাব লাঘব করা হয়, আমি শান্তিতে থাকি। হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন,আবু লাহাবের এ আযাব লাঘব হয়ে শান্তিতে থাকার কারন হচ্ছে, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত (আগমন) শরীফ এর দিন ছিলো সোমবার শরীফ ! সেই সোমবার শরীফ এ হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফের সুসংবাদ নিয়ে আবু লাহাবের বাঁদী সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা তিনি আবু লাহাবকে জানালেন তখন আবু লাহাব বিলাদত শরীফের খুশির সংবাদ শুনে খুশি হয়ে হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু আনহা উনাকে তৎক্ষণাৎ আযাদ করে দেয় !””
(ফতহুল বারী শরহে বুখারী ৯ম খন্ড ১১৮ পৃষ্ঠা , ওমদাতুল ক্বারী লি শরহে বুখারী ২০ খন্ড ৯৫ পৃষ্ঠা, মাওয়াহেবুল লাদুননিয়াহ ১ম খন্ড, শরহুয যারকানী ১ম খন্ড ২৬০ পৃষ্ঠা )

বিখ্যাত ঐতিহাসিক আল্লামা ইয়াকুব রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার কিতাবে লিখেন-

قال النبي صلي الله عليه و سلم رايت ابا لهب في النار يصيح العطش العطش فيسقي من الماء في نقر ابهامه فقلت بم هذا فقال بعتقي ثويبة لانها ارضعتك

অর্থ : হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, আমি আবু লাহাবকে দেখেছি জাহান্নামের আগুনে নিমজ্জিত অবস্থায় চিৎকার করে বলছে, পানি দাও ! পানি দাও !
অতঃপর তার বৃদ্ধাঙুলীর গিরা দিয়ে পানি পান করানো হচ্ছে। আমি বললাম, কি কারনে এ পানি পাচ্ছো ? আবু লাহাব বললো, আপনার বিলাদত(আগমন) শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করে হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়লা আনহা উনাকে মুক্ত করার কারনে এই ফায়দা পাচ্ছি ! কেননা তিনি আপনাকে দুধ মুবারক পান করিয়েছেন !””( তারীখে ইয়াকুবী ১ম খন্ড ৩৬২ পৃষ্ঠা )

সুতরাং প্রমানিত হল হুয়ূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনাকে পাওয়ার কারনে উনার জন্য ‘ফালইয়াফরাহু’ তথা খুশি মুবারক প্রকাশ করা সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত যা কুফরী শিরিকী করলেও ধ্বংস হয় না।
আর এই সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত বা আমল পালনার্থে যামানার ইমাম, মহান আল্লাহ পাক উনার খাছ লক্ষ্যস্থল, মুজাদ্দিদে আ’যম, হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম রাজারবাগ শরীফ উনার জারী করেছেন অনন্তকাল ব্যাপী সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদশরীফ মাহফিল। হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি এমন একজন ওলীআল্লাহ যিনি সকাল-সন্ধ্যা মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সন্তুষ্টি মুবারক তালাশ করে থাকেন। তাই দুনিয়ার সমস্ত মুসলমানের উচিত হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সংসর্গে আসা এবং দায়িমীভাবে ‘ফালইয়াফরাহু’ বা খুশি প্রকাশ করার জন্য রাজারবাগ শরীফে আসা।কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন –

وَاصْبِرْ نَفْسَكَ مَعَ الَّذِينَ يَدْعُونَ رَبَّهُم بِالْغَدَاةِ وَالْعَشِيِّ يُرِيدُونَ وَجْهَهُ ۖ وَلَا تَعْدُ عَيْنَاكَ عَنْهُمْ تُرِيدُ زِينَةَ الْحَيَاةِ الدُّنْيَا ۖ وَلَا تُطِعْ مَنْ أَغْفَلْنَا قَلْبَهُ عَن ذِكْرِنَا وَاتَّبَعَ هَوَاهُ وَكَانَ أَمْرُهُ فُرُطًا.

অর্থ : “আপনি নিজেকে উনাদের সংসর্গে আবদ্ধ রাখুন যাঁরা সকাল ও সন্ধ্যায় উনাদের পালনকর্তাকে উনার সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে ডেকে থাকেন (যিকির করেন) এবং আপনি পার্থিব জীবনের সৌন্দর্য্যে মোহগ্রস্থ হয়ে উনাদের থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিবেন না। ঐ ব্যক্তিকে অনুসরণ করবেন না, যার অন্তর আমার যিকির থেকে গাফিল করে দিয়েছি, যে নিজের কুপ্রবৃত্তির অনুসরণ করে এবং যার কার্যকলাপ হচ্ছে সম্মানিত শরীয়তে উনার খেলাফ বা বিপরীত।” (পবিত্র সূরা কাহাফ শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ২৮)