সম্মানিত দ্বীন ইসলামে দিবস পালন করা মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ মুবারক, সে দিবসসূহের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ দিবস হচ্ছে ১২ ই রবিউল আউয়াল শরীফ দিবস।

কিছু বাতিল ও গোমরাহ ফেরকার লোকেরা বলে থাকে সম্মানিত দ্বীন ইসলামে নাকি দিবস পালন করা হারাম! বলার বিষয় হল যদি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে দিবস পালনের বিধান হারাম-ই হয়ে থাকে তাহলে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর শরীফ বা পবিত্র শবে ক্বদর শরীফ তালাশ করতে কেন বললেন?

যেমন এ প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে –
عَنْ اُمّ الْمُؤْمِنِيْن حَضْرَتْ عَائِشَةَ الصِدّيْقَةَ عَلَيْهَا السَّلَامَ قَالَتْ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ تَـحَرَّوْا لَيْلَةَ الْقَدْرِ فِي الْوِتْرِ مِنَ الْعَشْرِ الْاَوَاخِرِ مِنْ رَمَضَانَ‏‏.‏
অর্থ : “উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, তোমরা পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার শেষ দশ দিনের বেজোড় রাতে পবিত্র শবে ক্বদর বা লাইলাতুল ক্বদর তালাশ করো।” (বুখারী শরীফ : কিতাবু ফাদ্বলি লাইলাতিল ক্বদর : বাবু তার্হারী লাইলাতিল ক্বদরি ফিল উইতি মিনাল আশরি আওয়াখিরি : হাদীছ শরীফ নং ২০১৭)

অন্য বর্ণনায় বর্ণিত আছে-
عَنْ اُمّ الْمُؤْمِنِيْن حَضْرَتْ عَائِشَةَ الصِدّيْقَةَ عَلَيْهَا السَّلَاَم قَالَتْ كَانَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُـجَاوِرُ فِي الْعَشْرِ الْاَوَاخِرِ مِنْ رَمَضَانَ وَيَقُوْلُ‏ تَـحَرَّوْا لَيْلَةَ الْقَدْرِ فِي الْعَشْرِ الْاَوَاخِرِ مِنْ رَمَضَانَ‏‏.‏
অর্থ : “উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার শেষ দশকে ইতিকাফ করতেন এবং বলতেন, তোমরা পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার শেষ দশকে পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর তালাশ করো।” (বুখারী শরীফ : কিতাবু ফাদ্বলিল লাইলাতুল ক্বদরি : বাবু তার্হারী লাইলাতিল ক্বদরি ফিল উইতি মিনাল আশরি আওয়াখিরি : হাদীছ শরীফ নং ২০২০)
পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর শরীফ বা পবিত্র শবে ক্বদর শরীফ তালাশ কী কোন দিবস পালন নয়?

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র আশূরা শরীফ পালন করলেন, এ দিবস উপলক্ষ্যে কেন রোযা রাখলেন এবং উম্মতকে রোযা রাখতে বললেন?
যেমন এ প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ اِبْنِ عَبَّاسٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَدِمَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْمَدِينَةَ فَرَاَى الْيَهُودَ تَصُوْمُ يَوْمَ عَاشُورَاءَ فَقَالَ مَا هٰذَا‏‏.‏ قَالُوْا هٰذَا يَوْمٌ صَالِحٌ هٰذَا يَوْمٌ نَـجَّى اللهُ بَنِـي اِسْرَائِيْلَ مِنْ عَدُوّهِمْ فَصَامَهٗ مُوْسٰى عَلَيْهِ السَّلَامُ‏.‏ قَالَ‏ فَاَنَا اَحَقُّ بِـمُوْسٰى عَلَيْهِ السَّلَامُ‏ مِنْكُمْ (نَـحْنُ اَحَقُّ بِـمُوْسٰى عَلَيْهِ السَّلَامُ‏ مِنْكُمْ.) فَصَامَهٗ وَاَمَرَ بِصِيَامِهٖ.‏
অর্থ : “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যখন পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে তাশরীফ মুবারক নিয়ে দেখতে পেলেন যে, ইয়াহুদীরা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন রোযা রেখে থাকে। তিনি উম্মতকে তা’লীম প্রদানের জন্য তাদেরকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। তখন ইয়াহুদীরা বললো, ওই দিনে ফির‘আঊন ও তার সৈন্যবাহিনী পানিতে ডুবে ধবংসপ্রাপ্ত হয়েছিলো। আর হযরত কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি ও উনার সঙ্গী-সাথীরা যুলুম-নির্যাতন থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন। এজন্য আমরা মহান আল্লাহ পাক উনার কৃতজ্ঞতা প্রকাশার্থে রোযা পালন করি। তখন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হযরত কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার ব্যাপারে তোমাদের চেয়ে আমিই বেশি হক্বদার। (ইবনে মাজাহ শরীফ উনার রেওয়াতে- তোমাদের চেয়ে আমরাই বেশি হক্বদার।) অতঃপর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি স্বয়ং পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন রোযা রাখলেন এবং ওই মুবারক দিনে সবাইকে রোযা রাখার হুকুম মুবারক দিয়েছেন।” (বুখারী শরীফ : কিতাবুছ্ ছওম : বাবু ছিয়ামি ইয়াউমি আশূরা : হাদীছ শরীফ নং ২০০৪, ইবনে মাজাহ শরীফ : কিতাবুছ্ ছওম : বাবু ছিয়ামি ইয়াউমি আশূরা : হাদীছ শরীফ নং ১৭৩৪)

তাহলে কী আশূরা শরীফ পালন বন্ধ করে দিতে হবে, এ দিবস উপলক্ষ্যে রোযা পালন বন্ধ করে দিতে হবে? সর্বোপরি মুসলমানদের জন্য বছরে ২টি বিশেষ দিবস- ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আদ্বহা। এই ২টি বিশেষ দিবস পালনও কী বন্ধ করে দিতে হবে? বাস্তবতা হচ্ছে- সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে যদি দিবস পালনের বিধান না-ই থাকতো বা হারাম হতো তাহলে উক্ত দিবসগুলো কখনোই আসতো না। তাই ‘সম্মানিত দ্বীন ইসলামে দিবস পালন করা হারাম’ এ ধরনের মন্তব্য কুফরীর শামিল। কেননা এ ধরনের মন্তব্য প্রদান করা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ অস্বীকার করার নামান্তর।